Home / বিনোদন / পাখিদের অভয়রণ্য শ্রীনগর সরকারী কলেজ

পাখিদের অভয়রণ্য শ্রীনগর সরকারী কলেজ

মোঃ জাকির হোসেন লস্কর,মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা ঃ পাখিদের অভয়রণ্য হিসেবে গড়ে উঠেছে মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগর সরকারী কলেজ। স্ব-চোখে না দেখলে বিশ^াস করা জায়না। কলেজের আম, জাম, কড়ইসহ নানা ধরনের উচু গাছে কয়েক হাজার পানকৌরি পাখি আবাস গড়ে তুলেছে। পাশাপাশি অনেক গাছের ডালে অসংখ্য বাদুরকেও ঝুলে থাকতে দেখা গেছে। অনুসন্ধানে জানা-গেছে, মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরের আড়িয়াল বিলসহ খাল-বিলের পানি কমে যাওয়ার কারনে খাদ্যের সন্ধ্যানে আসা বক, ত্রিশুল, কাদাখেচো, শালিক, পানকৌরি রাতচোরাসহ বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় পাখিদের সমরাহ ঘটেছে। কলেজে সারাদিনই পানকৌরির আনাগোনা। কলেজে পরন্ত বিকেল থেকে ঝাকে ঝাকে অসংখ্য পানকৌরি পাখিরা নীড়ে (কলেজের বিভিন্ন উচু গাছের ডালে) ফিরতে থাকে। পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠে কলেজসহ আশ-পাশের এলাকা। এক সাথে এত পানকৌরি এক সাথে দেখার জন্য উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে অনেকেই ভির জমায় কলেজ প্রাঙ্গনে। শ্রীনগর সরকারী কলেজে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। মনে হয় কলেজের প্রতিটি শিক্ষার্থীদের সাথে পানকৌরি পখিগুলোর অনেক দিনের চেনা। যেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা স্ব-যতেœ লালন পালন করছেন তাদের। শ্রীনগর সরকারী কলেজ প্রফেসর গোলাম মোস্তফা সরকার বলেন, এতো পানকৌরি এক সাথে এক স্থানে সাধারনত দেখতে পাওয়া যায়না। পাখি গুলোকে কেউ জাতে কোন প্রকার ক্ষতি সাধন করতে না পারে সে জন্য আমরা সবাই নজর রাখছি। পাশা-পাশি দর্শন বিভাগের প্রভাষক মাজহারুল ইসলাম পানকৌরি পাখি গুলোর প্রতি নজর রাখছে। এ বিষয়ে প্রভাষক মাজহারুল ইসলাম বলেন, সাধারনত কয়েক বছর ধরে সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবর মাসে কলেজে অসংখ্য পানকৌরি দেখতে পাওয়া যায়।  প্রতিদিন প্রায় ১০/১২ জন পাখি শিকারি পানকৌরি পাখি শিকার করতে আসে। আমি তাদের শিকার না করার জন্য বুঝিয়ে বলি। পাখি শিকারিদের শিকার না করতে দেওয়া খুবই কঠিন কাজ। এ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহীনিকেও অবহিত করা হয়েছে। এমনকি  উচু গাছের মাথায় পানকৌরির বাসা থেকে বাচ্চা গুলো কলেজের পুকুরে পরে গেলে। যাতে সাতার কেটে উঠতে পারে সে জন্য আমরা পুকুরের বিভিন্ন স্থানে গাছের ডাল কেটে দিয়েছি। জন সচেতনার অভাবে পরিবেশ বিপর্যয়ে আমাদের আশপাশে নানা প্রজাতির পশু পাখি প্রায় ধংসের পথে। ১৯৭৪ সালের বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনের পাখি শিকার দন্ডনীয় অপরাধ হলেও সে আইনের যথাযথ প্রয়োগ নেই। দেশীয় প্রজাতির এসব পাখি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় অতিব প্রয়োজনীয়। তাই, পাখি শিকারিরা যাতে অন্যায় ভাবে পাখির অভয়রান্য শ্রীনগর সরকারী কলেজের আগত পানকৌরি পাখিসহ অন্যান্য পাখিদের শিকার করতে না পারে। সে জন্য অতিসত্তর উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *