Home / মোবাইল টিপস / ঢাকা বিভাগ / মাওয়ায় বিনদনের প্রানকেন্দ্র পদ্মা সেতুর নান্দনিক টোল প্লাজা

মাওয়ায় বিনদনের প্রানকেন্দ্র পদ্মা সেতুর নান্দনিক টোল প্লাজা

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ মুন্সিগঞ্জ মাওয়ায় পদ্মা সেতুর নির্মিত এক নান্দনিক টোল প্লাজা,এখন বিনদনের প্রান কেন্দ্র। সেনা বাহিনীর তত্বাবধানে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া প্রান্তে এ টোল প্লাজার নির্মান কাজ সকল অংশ শেষ হয় গত বছর । এটি অপেক্ষায় ১৬ কোটি মানুষের পদ্মা সেতু শুভযাত্রায় ।তারি ধারাবাহিকতায় পৃথিবীর অন্যতম একটি সেতু হিসেবেই -বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে স্থাপন করতে যাচ্ছে ।এদিকে মাওয়া আসপাশে ও প্রকল্প এলাকার চেহারা ও অর্থনৈতিক সহ সামাজিক পরিবর্তনের পাশাপাশি এলাকার পর্যটন খাতে উন্নতি দেখা দিয়েছে ।বিশেষ করে আধুনিক সব সুযোগ সুবিধা পেয়েছে প্রকল্প এলাকায় বাসিন্দারা , মাওয়া প্রান্তের এরিয়াগুলোর কাজ শেষেসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হলে তার সুফল পাবেন এ এলাকার সহ দেশের পর্যটনপ্রেমীরা। মাওয়া চৌরাস্তা প্রান্তে ১’শ ৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সংযোগ সড়কের আওতায়এ টোল প্লাজাটি এখন দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। এই টোল প্লাজা নির্মান কাজ শেষ পর্যায়ে রয়ে পরিলক্ষিত ।এদিকে জেলা প্রশাসন, স্থানীয় এমপি সাবেক হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, ক্রীড়া সচিব কাজী আখতার উদ্দিন আহমেদ, ক্রীড়া পরিষদ ও সেনাবাহিনীর সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যৌথ পরিদর্শন করেছেন। মেদিনী মন্ডল ইউপিঃ চেয়ারম্যন হাজী আশরাফ হোসেন,জানায় পদ্মা সেতুর খুব কাছে লৌহজংয়ের মাওয়ায় আন্তর্জাতিক মানের টোল প্লাজা টি
নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিলেন সরকার। এখানে দুপুরের পর থেকে সন্ধ্যার আগে পর্যন্ত সূর্যের রূপালী ঝিলিক। মৃদু বাতাসে সব সময় দেখা যায় ২শ-থেকে ৩শ, দেশের পর্যটনপ্রেমীদের ]ি।কেউ সেলফি তুলেন, কেউ গান করেন,কেউ গল্পের জেমে রয়েছে ,কেউ এসেছে পদ্মা ভ্রমণ ও পদ্মার ইলিশ খেতে। সাথে বাড়তি একটি আকর্ষণ পাচ্ছে, টোল প্লাজা টি একটু বেশী ভালো লাগে, আশেপাশের প্রাকৃতিও সেতু রোমাঞ্চকর,দেখা যায়,পরিবেশ টি খোব পরিষ্কার এর অন্য সব জায়গা থেকে অন্যতম এখানকার পরিবেশ। নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর জায়গাটাও এখন একটা টুরিস্ট স্পট হিসেবে গণ্য হতে পারে,ও পদ্মা নদীর সৌন্দর্য, দুপাশের সুন্দর গ্রাম আর সেতুর কাজ দেখতে বেরিয়ে আসেন অনেকেই মাওয়ায়। তবে এ ভিলেজে ক্রিকেট, ফুটবলসহবেশ কয়েকটি স্টেডিয়াম নির্মাণসহ খেলাধুলার বিভিন্নইভেন্টের সুযোগ-সুবিধা থাকবে। সংশ্লিষ্টরাবলেন এসব জমির অধিকাংশই দাম হাকা। সার্ভিস এরিয়াটিকে পুরোপুরি গড়ে তোলা হচ্ছে পর্যটনবান্ধব করে। মাওয়ায় সার্ভিস এরিয়া নির্মাণে সার্বিক তদারকি করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *