Home / জাতীয় / তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের অবরুদ্ধ তৃতীয় শ্রেনির ছাত্রীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে হত্যার চেষ্টা

তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের অবরুদ্ধ তৃতীয় শ্রেনির ছাত্রীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে হত্যার চেষ্টা

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগর উপজেলার কোলাপাড়া ইউনিয়নের নাওপাড়া গ্রামের তৃতীয় শ্রেনির এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়াগেছে। সরেজমিনে জানা-গেছে গত ২৭ নভেম্বর সোমবার বিকেল আনুমানিক ৫ টার দিকে  উপজেলার নাওপাড়া গ্রামের প্রভাবশালী মোস্তফা সিকদারের ছেলে রাইদ (২১) প্রতিবেশী রিনা বেগমের ফাকা বাড়িতে প্রবেশ করে তার ৩য় শ্রেনিতে পড়ুয়া  মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।  স্কুল ছাত্রীর মা রিনা বেগম পাশের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করতে যান। এই সুযোগে প্রভাবশালী মোস্তফা সিকদারের ছেলে রাইদ ধর্ষণের উদ্দ্যেশে স্কুল ছাত্রীর ঘরের ভিতর প্রবেশ করে। ছাত্রীকে যৌন উত্তেজক করার জন্য মোবাইলে অশ্লিন ভিডিও দেখায়। ছাত্রী ভিডিওটি দেখতে না চাইলে, পরবর্তিতে বখাটে রাইদ ছাত্রীকে প্রথমে ২শত টাকা ও পরে ১ হাজার টাকার প্রলোভোন দেখায়। ছাত্রী এতও রাজি না হওয়ায় বখাটে রাইদ স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। ছাত্রী ধস্তা ধস্তি করে ছুটে চিৎকার দিতে গেলে রাইদ ঐ স্কুল ছাত্রীর গলা চেপে ধরে। এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেয়। ছাত্রী কোন রকম প্রান বাচিয়ে আর্ত চিৎকার দিলে আশ-পাশের লোকজন ছুটে আসলে বখাটে পালিয়ে যায়। ছাত্রীর মা পার্শবর্তী বাড়ি থেকে ঝিয়ের কাজ শেষে বাড়িতে ফিরে এলে ছাত্রীটি তার মাকে সব খুলে বলে। পরবর্তিতে বখাটের বাবা গোলাম মোস্তফা মেয়েটির মা সহ তার পরিবারকে এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেন। এ দিকে  মঙ্গলবার সারে ১১ টার দিকে ধর্ষণ চেষ্টা ঐ ছাত্রী সম্পর্কে শ্রীনগর  সাংবাদিক ক্লাবের সাংবাদিকগন ঘটনাটির তথ্য সংগ্রহ করে ফেরার পথে, বখাটে রাইদের বাবা গোলাম মোস্তফা, গোলাম রসুল ও স্কুল শিক্ষক মফিদুল ও রাজনসহ প্রায় ৮/১০ জনের একটি সংঘ বদ্ধ দল সাংবাদিকদের পথ অবরুদ্ধ করে তাদের নানা অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে। এক পর্যায়ে সাংবাদিক সুমন হেসেন শাওন ও  জাকির লস্করকে শরিরে ধাক্কা দিলে  হাতের ক্যামেরাসহ তারা পরে যান এবং হাতে পায়ে ব্যাথা পান। সাংবাদিকদের অবরুদ্ধ ও ভূক্তভোগী স্কুল ছাত্রীর পরিবারকে থানায় মামলা না করার জন্য ভয়-ভিতিসহ বাধা প্রদানের খবর পেয়ে শ্রীনগর সাংবাদিক ক্লাবের অন্যান্য সাংবাদিকেরা সাথে সাথে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম আলমগীর হোসেনকে জানালে তিনি সঙ্গে সঙ্গে ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠায়। পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌছে ভূক্তভোগী স্কুল ছাত্রীসহ তার মাকে থানায় নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে অসহায় স্কুলছাত্রীর মা রিনা বেগম বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এ দিকে শ্রীনগর সাংবাদিক ক্লাবের  সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় শ্রীনগর সাংবাদিক ক্লাবের সভাপতি মেঃ শাজাহান খান হামলা কারিদের বিরুদ্ধে থানায়  আর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ ব্যপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম আলমগীর হোসেন জানান, অভিযোগ হয়েছে, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *